সাময়িক বরখাস্ত সংক্রান্ত পরিপত্র । সাময়িক বরখাস্তের পর পুনর্বহাল যদি ভিন্ন হয়?

সাময়িক বরখাস্ত সংক্রান্ত পরিপত্র । সাময়িক বরখাস্তের পর পুনর্বহাল যদি ভিন্ন হয়?

কোন সরকারি কর্মচারী সাময়িক বরখাস্ত হলে শাস্তি পেতে পারেন অথবা তদন্ত শেষে অভিযোগ থেকে রেহাই পেতে পারেন- শাস্তি বা রেহাই পেলে কি হয় তা জেনে নিন- সাময়িক বরখাস্ত সংক্রান্ত পরিপত্র

সাময়িক বরখাস্ত মানে কি? সাময়িক বরখাস্তের অর্থ হইতেছে, কোন কর্মচারীকে সাময়িকভাবে কার্য সম্পাদনে, দায়িত্ব পালনে, ক্ষমতা ও কর্তৃত্ব প্রয়োগে বিরত রাখা এবং কতিপয় সুবিধা প্রাপ্তির অধিকার হইতে বঞ্চিত রাখা হয়। ফৌজদারী অভিযোগে অথবা দেনার দায়ে জেলে আটক সরকারী কর্মচারী গ্রেফতার হওয়ার তারিখ হইতে সাময়িক বরখাস্ত বলিয়া বিবেচিত হইবেন এবং বিচার কার্যক্রম শেষ না হওয়া পর্যন্ত খোরপোষ ভাতা পাইবেন (বি এস আর পার্ট-১ এর ৭৩ নং বিধির নোট-(২)।

সাময়িক বরখাস্ত অবস্থায় কি বেতন পাওয়া যায়? হ্যাঁ। তবে অর্ধেক।  স্মারক নং ED (Reg. IV ) – 202 / 83-39 তারিখঃ ১০ মে, ১৯৮৩ অনুযায়ী একজন সরকারী কর্মচারী সাময়িক বরখাস্ত অবস্থায় নিম্নোক্ত সুবিধাদি প্রাপ্য- (১) বি এস আর-৭১ ও এফ আর-৫৩ (বি) বিধির অধীনে মূল বেতনের অর্ধ হারে খোরাকী ভাতা । সাময়িক বরখাস্তের পূর্বের উত্তোলিত হারে পূর্ণ বাড়ী ভাড়া ভাতা । সাময়িক বরখাস্তের পূর্বের হারে বাড়ী ভাড়া পূর্বের হারে বাড়ী ভাড়া প্রদানের ভিত্তিতে সরকারী বাসভবনে বসবাস করিতে পারিবেন। সাময়িক বরখাস্তের পূর্বে উত্তোলিত হারে পূর্ণ চিকিৎসা ভাতা।সাময়িক বরখাস্তের পূর্বের প্রাপ্য মহার্ঘ ভাতার অর্ধেক পেয়ে থাকেন।

কি কি ভাতা পাওয়া যায় না? ক্ষতিপূরণ ভাতা পূর্ণ হারে। (অর্থ মন্ত্রণালয়ের ২৪ জুন, ১৯৮০ তারিখের স্মারক নং অঃমঃ/প্রবি-২/ভাতা-৮/৮০-১৬০)। সাময়িক বরখাস্ত অবস্থায় যে সকল সুবিধা প্রাপ্য নয় তা জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের স্মারক নং ED (Reg. IV ) – 202 / 83-39 তারিখঃ ১০ মে, । ১৯৮৩ অনুযায়ী সাময়িক বরখাস্ত অবস্থায় নিম্নোক্ত সুবিধাদি পাইবেন না- (১) ভ্রমণভাতা,; (২) যাতায়াত ভাতা; (৩) বাসায় টেলিফোন সুবিধা ; (৪) বাসায় অর্ডারলির সুবিধা; (৫) বাসায় পত্রিকার সুবিধা; (৬) আপ্যায়ন ভাতা বা আপ্যায়ন খরচ প্রাপ্য নয়।

চাকরি চলে গেলে কি করণীয় কি? চাকরিচ্যুতি, অপসারণ বা বাধ্যতামূলক অবসরের আদেশ আদালত কর্তৃক বাতিল হওয়ার পর পুনঃ তদন্তের ক্ষেত্রে সাময়িক বরখাস্ত ব্যক্তি আবেদন করতে পারবেন। সরকারী কর্মচারী (শৃঙ্খলা ও আপীল) বিধিমালা, ১৯৮৫ এর বিধি ১১ এর উপবিধি (৩) এর বিধানমতে চাকরি হইতে বরখাস্ত, অপসারণ বা বাধ্যতামূলক অবসরের আদেশ কোন আদালত বা প্রশাসনিক ট্রাইব্যুনাল কর্তৃক বাতিল হইলে কর্তৃপক্ষ মামলার অবস্থাদি বিবেচনাপূর্বক বিষয়টি পুনঃ তদন্ত করিতে পারিবেন । কর্তৃপক্ষ যদি পুনঃ তদন্তের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন, তাহা হইলে প্রথম যে তারিখ হইতে চাকরি হইতে বরখাস্ত বা অপসারণ বা বাধ্যতামূলক অবসরের দন্ড আরোপ করা হইয়াছিল, ঐ তারিখ হইতে সংশ্লিষ্ট কর্মচারী সাময়িক বরখাস্ত আছেন বলিয়া গণ্য হইবে এবং পুনরাদেশ না দেওয়া পর্যন্ত উক্ত সাময়িক বরখাস্ত চলিতে থাকিবে ।

সাময়িক বরখাস্ত অবস্থায় কর্মস্থলে অবস্থান করতে হবে । তবে যথাযথ কর্তৃপক্ষের পূর্বানুমতিক্রমে অন্যত্র গমণ করিতে পারিবেন। (স্মারক নং (ED(Reg-VI)/S-93/79-87(500), তারিখঃ ২ সেপ্টেম্বর, ১৯৮০)

সাময়িক বরখাস্তকৃত কর্মচারীর পদ পূরণে নিয়োগ দেয়া যাইবে? না। সাময়িক বরখাস্ত থাকা অবস্থায় সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি নিজস্ব পদটি দখল করিয়া রাখেন। ফলে উক্ত পদটি পদশূন্য হিসাবে বিবেচিত হয় না বিধায় ঐ পদে নিয়োগ করা যায় না। তবে বিশেষ ক্ষেত্রে কাজের ধারাবাহিকতা বজায় রাখার স্বার্থে অত্যাবশ্যকীয় হইলে অর্থ মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন সাপেক্ষে এই উদ্দেশ্যে সুপারনিউমারারি পদ সৃষ্টি করা যাইতে পারে। কিন্তু সাময়িক বরখাস্তকৃত ব্যক্তির সাময়িক বরখাস্তের মেয়াদ শেষ হওয়ার বা চাকরিতে পুনর্বহাল হওয়ার সংগে সংগে সুপারনিউমারারি পদটি বিলুপ্ত হইবে (জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের স্মারক R-III/IS-138/69/50, তারিখঃ ১৪ ফেব্রুয়ারি, ১৯৭০)।

Caption: click here to see Full Documents

সাময়িক বরখাস্তকালীন কি ছুটি পাওয়া যায়?

না। সরকারী কর্মচারী (শৃঙ্খলা ও আপীল) বিধিমালা, ১৯৮৫ এর বিধি ১২ এর উপবিধি (১) অনুযায়ী সাময়িক বরখাস্তের আদেশের অনুবৃত্তিক্রমে বাধ্যতামূলক অবসর দেওয়া হইলে, সাময়িক বরখাস্তকাল ক্ষতিপূরণ পেনশন বা আনুতোষিক বা ভবিষ্য তহবিলের সুবিধাদি প্রদানের ক্ষেত্রে গণনাযোগ্য হইবে না। সাময়িক বরখাস্তকৃত কর্মচারীকে ছুটি প্রদান করা যাইবে না। বি এস আর, পার্ট-১ এর বিধি-৭৪। বরং ছুটি ভোগরত কোন কর্মচারীকে সাময়িক বরখাস্তের আদেশ দেওয়া হইলে, সাময়িক বরখাস্তের আদেশ দানের তারিখ হইতে ছুটি বাতিল হইবে। বি এস আর, পার্ট-১ এর বিধি-৭৪ এর ১নং নোট ।

সাময়িক বরখাস্তের পর পুনর্বহাল করণীয় কি? সরকারী কর্মচারী (শৃঙ্খলা ও আপীল) বিধিমালা, ১৯৮৫ এর বিধি-১৩ এর উপবিধি (২) এর বিধানমতে সাময়িক বরখাস্তের পর পুনর্বহাল বাংলাদেশ সার্ভিস রুলের বিধান দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হইবে। এই সম্পর্কে বি এস আর, পার্ট-১ এর ৭২ নং বিধিতে নিম্নরূপ বিধান সন্নিবেশিত আছে:- বিধি-৭২। সাময়িক বরখাস্তকৃত কোন কর্মচারীর সাময়িক বরখাস্ত অন্যায্য হইলে বা সম্পূর্ণ ন্যায় সংগত না হইলে দন্ড আরোপকারী কর্তৃপক্ষ, আপীলেট কর্তৃপক্ষ বা আদেশ সংশোধনকারী কর্তৃপক্ষ উক্ত কর্মচারীকে নিম্নোক্ত সুবিধাদি মঞ্জুর করিতে পারিবেন- অভিযোগ হইতে সসম্মানে অব্যাহতি পাওয়ার ক্ষেত্রে পূর্ণ বেতন ও ভাতাদি মঞ্জুর করিতে পারিবেন । এইক্ষেত্রে অনুপস্থিতকাল কর্মকাল হিসাবে গণ্য হইবে। এছাড়াও সসম্মানে অব্যাহতি ব্যতীত অন্যান্য ক্ষেত্রে বেতন ও ভাতাদির কি পরিমাণ প্রদান করা হইবে, সে সম্পর্কে আদেশ দিতে হইবে। ইহাছাড়া অনুপস্থিতকাল কর্মকাল হিসাবে নাকি ছুটি হিসাবে গণ্য হইবে, সে সম্পর্কেও আদেশ দিতে হইবে । ছুটি হিসাবে গণ্য করা হইলে, উক্ত ছুটি ‘ছুটির হিসাব’ হইতে বাদ যাইবে। প্রদত্ত খোরাকী ভাতা ছুটিকালীন বেতনের সহিত সমন্বয় করিতে হইবে। তবে এই সময়কে অসাধারণ ছুটি হিসাবে গণ্য করা হইলে ইতোমধ্যে প্রদানকৃত খোরাকী ভাতা সংশ্লিষ্ট কর্মচারীর নিকট হইতে আদায় করা যাইবে না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *