ড্রাইভিং লাইসেন্স সরবরাহ বন্ধ

ড্রাইভিং লাইসেন্স পেতে কত দিন লাগে? ড্রাইভিং লাইসেন্স ডাউনলোড

ড্রাইভিং লাইসেন্স পেতে কত দিন লাগে – ড্রাইভিং লাইসেন্স করার ক্ষেত্রে ধৈর্য ধারণ করতে হবে – ড্রাইভিং লাইসেন্স প্রাপ্যতা ২০২২

ড্রাইভিং লাইসেন্স প্রাপ্তি –নিয়ম অনুযায়ী অনলাইনে ড্রাইভিং লাইসেন্স এর জন্য আবেদন করবেন। যদিও ফরম পূরণের মাধ্যমে ড্রাইভিং লাইসেন্স এর জন্য আবেদন করতে হবে। অনলাইনে আবেদনের সময়ই আপনি অ্যাডমিট কার্ড পেয়ে যাবেন এবং সেখানে পরীক্ষার তারিখ উল্লেখ থাকে। সফটওয়ার সংগ্রহ করুন: ডাউনলোড

ড্রাইভিং লাইসেন্স পাওয়ার ক্ষেত্রে আপনাকে প্রথমে লিখিত পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করতে হবে। লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়ার পর আপনি ভাইভাতে অংশ গ্রহণ করবেন। ভাইভা উত্তীর্ণ হলে আপনি মোটর বাইক এবং মোটর কার নিয়ে ফিল্ডে ব্যবহারিক পরীক্ষার দিবেন। ব্যবহারিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়ার পর আপনি ড্রাইভিং লাইসেন্স  প্রাপ্যতার যোগ্যতা অর্জন করবেন এবং সাময়িক যে কার্ড আপনি পাবে তা দিয়ে ৬-৯ মাস পর্যন্ত ড্রাইভিং করতে পারবেন, মেয়াদ উত্তীর্ণ হলে আপনি ডেট বা সময় বাড়িয়ে নিতে পারবেন।

এখন আসি ড্রাইভিং লাইসেন্স কত দিনে পাবেন, কার্ড সহজলভ্য থাকলে আপনি ৩-৭ দিনের মধ্যেই ড্রাইভিং লাইসেন্স পাবেন। কিন্তু বাস্তবতা ভিন্ন বিষয় আমি নিজে ড্রা্ইভিং লাইসেন্স প্রাপ্তির জন্য পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হলেও ১ (এক) বছর চলে গেল ড্রাইভিং লাইসেন্স পাইনি। কারও ক্ষেত্রে লাইসেন্স পেতে ৩ বছরও অতিক্রান্ত হয়ে যাচ্ছে।

Bangladesh Road Transport Authority BRTA / মোটর বাইক ড্রাইভিং লাইসেন্স সাময়িক সনদ

ব্যবহারিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়ার পর আপনি নিচের সাময়িক সনদ পাবেন যা দিয়ে ৬-৯ মাসের মত চলতে পারবেন। মূল ড্রাইভিং লাইসেন্স না পাওয়া পর্যন্ত আপনি এটি মেয়াদ রিনিউ করতে পারবেন।

Driving Licence Paper

Caption: This Temporary Authorization in lieu of a driving license card as per rule 17 (1) of motor vehicle Rules, 1984 due to un-availability of driving license card. This Authorization shall be deemed as a driving license.

ড্রাইভিং লাইসেন্স এর জন্য কিভাবে আবেদন করতে হয়?

  1. প্রথমে “bsp brta” লিখে গুগল করুন।
  2. Welcome to BRTA Service Portal তে ক্লিক করুন।
  3. Register মেন্যুতে ক্লিক করুন।
  4. জন্ম তারিখ ও জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বর দিয়ে রেজিস্ট্রেশন প্রক্রিয়া শুরু করুন।
  5. অনুসন্ধান ক্লিক করলেই সমস্ত তথ্য এনআইডি থেকে চলে আসবে। মোবাইল নম্বর এবং ইমেইল আইডি এবং পাসওয়ার্ড দুবার দিয়ে নিবন্ধন করুন ক্লিক করুন।
  6. ইমেইলে লিংক দিয়ে ভেরিফিকেশন করে নিতে হবে। ইমেইলে ঢুকে Click  এ ক্লিক করে ভেরিফাই করে নিন।
  7. ভেরিফিকেশন সম্পন্ন হয়েছে ম্যাসেজ দেখতে পাবেন।
  8. ইমেইল বা ফোন নম্বর এবং পাসওয়ার্ড দিয়ে Login এ ক্লিক করলে মোবাইলে ওটিপি আসবে এবং ওটিপি দিয়ে ভেরিফাই করে প্রফাইলে প্রবেশ করুন। পুনরায় লগিন করবেন এবং উপরের চিত্রের মত তথ্য দেখাবে।
  9. বামপাশ মেন্যু হতে ড্রাইভিং লাইসেন্স এ ক্লিক করে ট্যাবগুলো থেকে প্রথম শিক্ষানবিশ লাইসেন্স এর জন্য আবেদন করুন এ ক্লিক করলে ইনস্ট্রাকশন দেখাবে সেখানে থেকে ডাক্তারী সার্টিফিকেটের ফরম সংগ্রহ করুন। মোট কথা ইনফরমেশনগুলো ভাল করে পড়ে ফাইলগুলো ঠিক ঠাকমত স্ক্যান করুন।
  10. যদি সব ডকুমেন্ট থাকে আমি সম্মত ক্লিক করলেই আবেদন পেইজ আসবে। ব্যক্তিগত ক্ষেত্রে অপেশাদার সিলেক্ট করে ছবি আপলোড করবেন ফরম্যাট ঠিক রাখবেন।
  11. সেকশন এ তে জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বর দিবেন, জন্ম তারিখ দিবেন এবং অনুসন্ধান এ ক্লিক করলে সকল তথ্য এনআইডি’র বিপরীতে অটো চলে আসবে।
  12. ইংরেজীতে পিতা মাতার নাম, লিঙ্গ সিলেক্ট করবেন, স্বামী বা স্ত্রীর নাম (যদি থাকে), পেশা, শিক্ষাগত যোগ্যতা, বৈবাহিক অবস্থা, স্বামী স্ত্রীর নাম বাংলায়, রক্তের গ্রুপ, বর্তমান ঠিকানা, স্থায়ী ঠিকানা ইত্যাদি দিয়ে দিবেন।
  13. আবেদনকারীর যোগাযোগের বিবরণে মোবাইল নম্বর এবং জরুরী যোগাযোগের জন্য কারও নাম, মোবাইল নম্বর দিবেন এবং
  14. সেকশন বি-তে মোটর সাইকেল ধরণ, লাইট বা হেবী ইত্যাদি প্রয়োজন অনুসারে সিলেক্ট করবেন।
  15. সংযুক্তিতে সকল ডকুমেন্ট আপলোড করতে হবে। যা আপনি স্ক্যান করে রেখেছেন। তারপর সংরক্ষণে ক্লিক করলে সংরক্ষণ হবে এবং নিচে অনলাইন ফি জমা’তে
  16. অনলাইন ফি জমাতে ক্লিক করলে আবেদন রিভিউ দেখতে পাবেন নিচে মোট ফি দেখাবে। ফি জমা দিলে ফি জমাতে ক্লিক করুন।
  17. তাদের সাথে যে কয়েকটি ব্যাংক রয়েছে তা দেখাবে। মোবাইল নম্বর নিশ্চিত করুনে টিক দিন এবং বিকাশ, ডাচ বাংলা ব্যাংক, সিটি ব্যাংক ইত্যাদি মাধ্যমে অর্থ পরিবর্তন করতে পারবেন। ধরি বিকাশে দিবেন।
  18. বিকাশ সিলেক্ট করে নিচের টার্মস এন্ড কন্ডিশন নিশ্চিত করুন এবং বিকাশ গেইটওয়ে থেকে পেমেন্ট করুন এবং ওটিপি এবং পিন দিয়ে কনফার্ম করলে বিকাশ পেমেন্ট শেষ।
  19. পেমেন্ট হয়েছে এবং আবেদনটি সম্পন্ন হয়েছে এবং মানি রিসিপ্ট এবং লার্নারটি ডাউনলোড করে প্রিন্ট করতে পারবেন। লার্নার কার্ডে পরীক্ষার তারিখ এবং ইত্যাদি তথ্য থাকবে। এভাবেই ঘরে বসেই ড্রাইভিং লাইসেন্স এর জন্য আবেদন করতে পারেন।

ড্রাইভিং লাইসেন্স রেডি কিনা তা কিভাবে চেক করবো?

আপনি অনলাইনে গুগল প্লে স্টোরে প্রাপ্যতা রয়েছে DL Checker দিয়েও চেক করতে পারেন। অন্যদিকে মোবাইলে ম্যাসেজ দিয়েও ড্রাইভিং লাইসেন্স রেডি কিনা তা চেক করতে পারবেন। Driving License Status Check by “DL Checker” App or write “DL<Space> Reference Number” and Send sms to 26969. অ্যাপ ও মেসেজ সার্ভিস বর্তমানে বন্ধ রয়েছে।

প্রশ্নোত্তর:

প্রশ্ন: ড্রাইভিং লাইসেন্স কত দিনে পেয়েছেন?

উত্তর: আলহামদুলিল্লাহ দীর্ঘ তিন বছর অপেক্ষার পরে ড্রাইভিং লাইসেন্স পাইলাম। ম্যাসেজ নমুনা নিচে দেওয়া হলো।ড্রাইভিং লাইসেন্স পাওয়ার সময়

ড্রাইভিং লাইসেন্স চেক । রেফারেন্স নাম্বার দিয়ে ড্রাইভিং লাইসেন্স চেক করার নিয়ম ২০২২

(Visited 2,557 times, 3 visits today)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *