করযোগ্য আয় থাকুক বা থাকুক । TIN টিন সার্টিফিকেট থাকলেই রিটার্ণ দাখিল করতে হবে

করযোগ্য আয় থাকুক বা থাকুক । TIN টিন সার্টিফিকেট থাকলেই রিটার্ণ দাখিল করতে হবে

অফলাইনে রিটার্ণ দাখিল করলেও আপনি অনলাইনে তথ্য এন্ট্রি করে ফাইল তৈরি করতে পারবেন – অফলাইন থেকে অনলাইন রিটার্ণ দাখিল তুলনামূলকভাবে সহজ – TIN টিন সার্টিফিকেট থাকলেই রিটার্ণ দাখিল করতে হবে

একবার রিটার্ণ দাখিল করলে কি প্রতি বছর দাখিল করতে হবে? হ্যাঁ – যারা (TIN) টিন সার্টিফিকেট করছেন ট্যাক্সেবল ইনকাম থাকুক বা না থাকুক ২০২২-২০২৩ রিটার্ন জমা দিন। প্রত্যেক টিনধারীর জন্য সরকার ট্যাক্স রিটার্ন দেওয়া বাধ্যতামূলক করেছে। অন্যথায় জরিমানার সম্মুখীন হবেন। আয়কর পরিপত্র ২০২২-২৩ । আয়করের হার বেশ পরিবর্তন হয়েছে

সম্মানিত করদাতা, আপনার আয়কর রিটার্ন প্রস্তুত ও দাখিল করতে নিচের ডকুমেন্টগুলো সংগ্রহ করে জমা দিন। চাকরি/বেতন খাতে আয়ের রেফারেন্স হিসেবে- বেতন বিবরণী বা সেলারি সার্টিফিকেট,  সেলারির বিপরীতে কর্তনকৃত টিডিএস -এর প্রত্যয়নপত্র, ব্যাংক স্টেটমেন্ট (from 01-07-2021 to 30-06-2022), Provident Fund info/GPF Balance Sheet. (if any)। অনলাইনে রিটার্ণ দাখিল করতে ক্লিক করুন: etaxnbr.gov.bd

ব্যবসা/পেশা খাতে আয়ের তথ্য হিসেবে যে রেফারেন্স সংগ্রহ করতে হবে- ট্রেড লাইসেন্স, ব্যবসার নামীয় ব্যাংক স্টেটমেন্ট, ব্যবসার নামে লোন থাকলে- লোন আউটস্ট্যান্ডিং সার্টিফিকেট, ব্যবসা আয়ের উপর অগ্রীম আয়কর (AIT) বা উৎসে কর কর্তন (TDS) থাকলে অগ্রীম আয়কর বা উৎসে করের প্রত্যয়নপত্র ও চালানের কপি, বার্ষিক ক্রয়-বিক্রয় ও আয় বিবরনী, মূল্যসহ ব্যবসার সম্পদের তালিকা (Fixture, Furniture, Equipment & Machinarie etc.)। আয়কর রিটার্ন যাচাই ২০২২ । আপনার রিটার্ন দাখিল হয়েছে কিনা অনলাইনে চেক করা যাবে

বিনিয়োগ ও ব্যাংক ইন্টারেস্ট তথ্য দেখাতে যে ডকুমেন্ট লাগবে – জীবন বীমা করা থাকলে প্রিমিয়াম প্রদানের রসিদ, ডিপিএস করা থাকলে ডিপিএস স্টেটমেন্ট, পূর্বের কোন ডিপিএস এনক্যাশ বা নগদায়ন করে থাকলে নগদায়ন প্রত্যয়নপত্র বা এনক্যাশমেন্ট সার্টিফিকেট, এফডিআর করে থাকলে তার ডকুমেন্ট ও ইন্টারেস্ট প্রাপ্তির প্রত্যয়নপত্র, শেয়ার মার্কেটে বিনিয়োগ থাকলে ব্রোকার হাউস থেকে বিনিয়োগ প্রত্যয়নপত্র ও পোর্টফলিও -র কপি, সঞ্চয়পত্র ক্রয় করে থাকলে তার ডকুমেন্ট , সঞ্চয়পত্রের ইন্টারেস্ট প্রাপ্তি ও তার বিপরীতে টিডিএস কর্তনের প্রত্যয়নপত্র। Income tax Excel File 2022 । এক্সেলে যেভাবে রিটার্ণ ফাইল অটো রেডি করবেন

অফিসে হার্ড কপির মাধ্যমে রিটার্ণ দাখিলের ক্ষেত্রেও অনলাইনে ফাইল বা রিটার্ণ ফর্ম রেডি করতে পারেন / অনলাইনে রিটার্ণ দাখিল ও পেমেন্ট করা যায়।

ম্যানুয়াল বা অফলাইন অথবা অনলাইনে যেখানেই রিটার্ণ ফাইল বা দাখিল করুন না কেন? অবশ্যই হার্ড কপি ফাইলে সংরক্ষণ করুন কোন রকম অডিট আপত্তি উঠলে আপনি ডকুমেন্ট শো করতে পারবেন।

৩০ নভেম্বর ২০২২ , Income Tax Filing  রিটার্ণ দাখিল করার শেষ সময়।

গৃহ সম্পত্তির রেফারেন্স ডকুমেন্ট তালিকা ২০২২ । গৃহ-সম্পত্তি হতে আয়ের তথ্য পেশ করার ডকুমেন্ট যা লাগবে

  1. আপনার বাড়ি/ফ্ল্যাট/দোকান ভাড়া দিয়ে আয় থাকলে ভাড়ার চুক্তিপত্রের কপি ও ব্যাংক স্টেটমেন্ট দিন;
  2. আপনার বাড়ি/ফ্ল্যাট/দোকান এর পৌর কর বা সিটি কর্পোরেশন কর প্রদানের রসিদ;
  3. হাউজ লোন থাকলে- লোন আউটস্ট্যান্ডিং সার্টিফিকেট;

সম্পদ ও দায় সংক্রান্ত ডকুমেন্ট বা রেফারেন্স যা আপনাকে রিটার্ণ দাখিল এবং অডিট টিমের নিকট দাখিল করতে হবে।

  • এ বছর আপনার নামে কোন জমি/ফ্ল্যাট/বাড়ি/গাড়ি ক্রয় করে থাকলে তার দলিলের কপি;
  • এ বছর আপনার কোন জমি/ফ্ল্যাট/বাড়ি/গাড়ি বিক্রি করে থাকলে বিক্রয় দলিলের কপি ও উৎসে কর্তনের কপি;
  • বাড়ি/ফ্ল্যাট নির্মাণাধীন থাকলে নির্মাণ বিনিয়োগের পরিমাণ;
  • আপনার নামে গাড়ি থাকলে পারসোনাল ট্যাক্স টোকেনের কপি;
  • আপনার ব্যাংক লোন থাকলে লোন আউটস্ট্যান্ডিং সার্টিফিকেট ;
  • ডেভেলপার কোম্পানিকে দিয়ে বাড়ি নির্মাণকালে সাইনিং মানি পেয়ে থাকলে তার ডকুমেন্ট;
  • ব্যক্তিগত লোন ৫ লাখ টাকার বেশি হলে এর সপক্ষে ব্যাংক স্টেটমেন্ট ;
  • পরিবারের কারো কাছ থেকে কোন দান গ্রহণ করলে বা কাউকে দান করে থাকলে তার ডকুমেন্ট ; আর টাকা দান হলে তার সপক্ষে ব্যাংক স্টেটমেন্ট ;
  • এছাড়াও আপনার অন্য কোন আয় থাকলে তার ডকুমেন্ট দিন;
  • সকল স্টেটমেন্ট/প্রত্যয়নপত্রের সময়কাল হবে ০১/০৭/২০২১ থেকে ৩০/০৬/২০২২ইং পর্যন্ত।

বৈদেশিক/রেমিট্যান্স আয়ের তথ্য দেখাতে কি ডকুমেন্ট লাগবে?

বৈদেশিক/রেমিট্যান্স আয়ের সপক্ষে ব্যাংক সার্টিফিকেট বা এফএমজে ফরম/বৈদেশিক মুদ্রা ঘোষণা ফরম এর কপি; (মনে রাখবেন, বৈদেশিক আয় করমুক্ত হতে হলে তা আপনার নিজের আয় হতে হবে এবং প্রপার চ্যানেলে আসতে হবে)। ব্যাংক স্টেটমেন্ট বা ব্যাংক বিবরণীতে অবশ্যই প্রতিটি লেনদেন হিট করতে হবে। হুন্ডি বা অন্য কোন অবৈধ উপায়ে আয় দেশে আনা যাবে না।

আপনি এ বছর নতুন করদাতা হলে আপনার এনআইডি-র ফটোকপি, টিআইএন সার্টিফিকেট, মোবাইল নম্বর, ই-মেইল এড্রেস ও এক কপি পাসপোর্ট সাইজের ছবি রেডি করুন। আপনি পুরাতন করদাতা হলে গত বছরে দাখিলকৃত রিটার্ন এর কপি লাগবে (গত বছর আমরা কাজ করে থাকলে আমাদের কাছে রিটার্নের কপি আছে)। আপনার আয়ের ওপর নির্ভরশীল পরিবারের সদস্য সংখ্যা ও তাদের বয়স সম্পর্কিত তথ্য ফাইলে সংরক্ষণ করুন।

যথাযথ কর পরিগণনার জন্য আপনার সকল কাগজপত্র একত্রে দিন। ১৫ নভেম্বরের পরে দিলে আপনার রিটার্ন দাখিলের জন্য সময় নেয়া লাগতে পারে। মনে রাখবেন, এবার ৩০ নভেম্বরের পরে রিটার্ন দাখিল করলে আইনানুযায়ী পূর্ণ কর রেয়াত পাবেন না। অর্ধেক রেয়াত পাবেন এবং ২% বিলম্ব ফি দিতে হবে।

টিনধারীদের অনলাইনে জিরো রিটার্ণ দাখিল পদ্ধতি । Online Zero Return Step by Step

(Visited 1,217 times, 1 visits today)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *