Service.nidw.gov bd । নতুন ভোটার আইডি কার্ড করার নিয়ম ২০২২

আসসালামু আলাইকুম। আমাদের দেশের প্রতিটি নাগরিকের তার পরিচয় প্রমাণের প্রধান মাধ্যম হলো জাতীয় পরিচয়পত্র বা এনআইডি কার্ড। বাংলাদেশের প্রতিটি নাগরিকের জন্য এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ সনদ যা সরকারী কিংবা বেসরকারী সকল দাপ্তরিক কাজে প্রয়োজন। বাংলাদেশে কোন নাগরিকের বয়স ১৮ বছর পূর্ণ হলে তাকে বাধ্যতামূলকভাবে এই পরিচয়পত্রটি করতে হয়।  তবে আপনার বয়স যদি ১৬ বছর হয়ে থাকে তবে আপনিও জাতীয় পরিচয়পত্রের জন্য আবেদন করতে পারবেন। বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন এই পরিচয়পত্রটির যাবতীয় কার্যাবলী নিয়ন্ত্রণসহ প্রদান করে থাকে। বর্তমানে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক জাতীয় পরিচয়পত্রের স্মার্ট কার্ড বিতরণ করা হয়। জাতীয় পরিচয়পত্রের জন্য কি কি উপায়ে আবেদন করা যায়, কোন কোন প্রয়োজনীয় কাগজপত্রাদি আবেদনের সাথে জমা দিতে হয়, আবেদন করার নিয়ম সম্পর্কে অনেকেরই সুষ্পষ্ট ধারণা নেই বিধায় আজকে এই বিষয়ের উপর বিস্তারিত ধারণা দেয়ার চেষ্টা করবো ইনশাহ আল্লাহ ওয়ামা তাওফীক ইল্লা বিল্লাহ।

১. জাতীয় পরিচয়পত্র আবেদন করার প্রক্রিয়া

নতুন জাতীয় পরিচয়পত্রের জন্য আপনি দুই ভাবে আবেদন করতে পারবেন। যেমন-

ক) অফলাইন আবেদন: স্ব স্ব উপজেলা নির্বাচন অফিসে গিয়ে জাতীয় পরিচয়পত্র নিবন্ধন ফরম-২ সংগ্রহ করে তা পূরণ করে চাহিত প্রয়োজনীয় সকল কাগজপত্র আবেদনের সাথে সংযুক্ত করে জমা দিতে হবে।

খ) অনলাইন আবেদন: ঘরে বসে নিজেই নিজের জাতীয় পরিচয়পত্রের জন্য আবেদন অনলাইনে দাখিল করে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র স্ব স্ব উপজেলা নির্বাচন অফিসে জমা দেওয়ার মাধ্যমে করা যায়। এখানে আমি শুধুমাত্র অনলাইনে নতুন জাতীয় পরিচয়পত্রের আবেদন কিভাবে দাখিল করতে হয় তার বিস্তারিত উল্লেখ করবো।

১. প্রয়োজনীয় কাগজপত্র

  • জন্ম সনদের ফটোকপি
  • পিতা মাতার জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপি, পিতা মাতা মৃত হলে তাদের মৃত্যু সনদ এর ফটোকপি
  • বিবাহিত হলে স্বামী/স্ত্রীর জাতীয় পরিচয়পত্ত্রের ফটোকপিসহ কাবিন নামার ফটোকপি
  • চ্যায়ারম্যান কর্তৃক নাগরিক সনদপত্র
  • শিক্ষিত হলে শিক্ষাগত সনদের সত্যায়িত ফটোকপি
  • রক্তের গ্রুপ (বাধ্যতামূলক নয় , জমা দিলে ভালো)
  • ইউটিলিটি বিলের ফটোকপি (বাড়ির যে কোন একজনের নামে বিদ্যুৎবিল/পানির বিল/গ্যাস বিল)
  • জমির কাগজ (প্রযোজ্য ক্ষেত্রে)

৩. আবেদনের নিয়ম

ধাপ ০১: অনলাইনে জাতীয় পরিচয়পত্রের জন্য আবেদন করতে হলে প্রথমেই আপনাকে আপনার মোবাইল কিংবা কম্পিউটার হতে services.nidw.gov.bd এই ঠিকানায় ভিজিট (Visit) করতে হবে। ভিজিট করে আবেদন করুন অপশনে ক্লিক করে প্রবেশ করুন।

ধাপ ০২: আবেদন বাটনে ক্লিক করলে একটি ফরম (Form) আসবে। ফরমটির প্রথমে আবেদনকারীর নাম ইংরেজীতে (English), তারপর জন্ম তারিখ এবং তারপর ক্যাপচা (Captcha) পূরণ করে বহাল/ (Continue) বাটনে ক্লিক করুন। ক্যাপচাটি যেমন রেখা থাকবে ঠিক তেমনই লিখতে হবে, ভূল হবে হবে না।

ধাপ ০৩: বহাল/ (Continue)  বাটনে ক্লিক করার পর নতুন পেজ (Page) আসলে সেখানে আপনার মোবাইল নম্বর সাবমিট (Submit) করে বার্তা পাঠান (Send Message) বাটনে ক্লিক করলে আপনার মোবাইলে ০৬ সংখ্যার একটি কোড আসবে এবং যাচাইকরণ কোডটি দিন নামে একটি পেজ (Page) আসবে। মোবাইলে ৬ সংখ্যার প্রাপ্ত যাচাইকরণ কোডটি যথাস্থানে লিখে বহাল/ (Continue) ক্লিক করুন।

ধাপ ০৪:  বহাল/ (Continue) বাটনে ক্লিক করার পর নতুন পেজ লোড হয়ে ইউজার নেম (User Name) ও পাসওয়ার্ড (Pasward) সেট করার আপশন (Option) আসবে। ইউজার নেম (User Name) ও পাসওয়ার্ড (Pasward) সেট করে রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন করুন। পাসওয়ার্ডটি অবশ্যই সংরক্ষন করুন কারণ পরবর্তীতে আপনার একাউন্টে লগ ইন (Log in)  করতে হলে এই পাসওয়ার্ডটি প্রয়োজন হবে। রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন হলে আপনার একটি একাউন্ট (Account) তৈরী হয়ে যাবে এবং আপনাকে আপনার একটি প্রোফাইল (Profile) প্রদর্শন করবে।

ধাপ ০৫: প্রোফাইল (Profile) বাটনে ক্লিক করলে আপনাকে আপনার ব্যক্তিগত তথ্য (Personal Information), অন্যান্য তথ্য (Identification Information) ও ঠিকানা (Address) প্রদান করার জন্য বলবে। এই ০৩ প্রকার তথ্য আপডেট করার জন্য উপরে বামপাশে এডিট (Edit) বাটনে ক্লিক করুন। এডিট বাটনে ক্লিক করলে একটি বড় ফরম আসবে এবং তাতে ব্যক্তিগত তথ্যাদি দেখতে পাবেন।

  • সেখানে আপনার ইংরেজী নাম, জন্ম তারিখ ও জাতীয়তা সিলেক্ট করাই থাকবে। আপনি শুধু বাংলায় নাম, লিঙ্গ, রক্তের গ্রুপ, জন্ম নিবন্ধন নম্বর ও জন্মস্থান সিলেক্ট করুন।
  • আপনার পিতা, মাতা ও বড় ভাই এর তথ্য সিলেক্ট করুন। পিতা/মাতা মৃত হলে মৃত বাটনে টিক চিহ্ন দিন এবং মৃত্যুর সাল উল্রেখ করুন। তারপর পিতা/মাতার নাম বাংলা ও ইংরেজীতে এবং জাতীয় পরিচয়পত্র লিখুন। বড় ভাই/বোনের তথ্যের স্থানে আপনার বড় ভাই/বোনের নাম ও জাতীয় পরিচয়পত্র লিখুন। যদি বড় ভাই/বোন না থাকে তবে লেখার প্রয়োজন নেই। ফরমে উল্লেখিত (*) দেওয় অপশনগুলো অবশ্যই পূরণ করতে হবে।
  • আপনি যদি বিবাহিত হয়ে থাকেন তবে বৈবাহিক অবস্থা বিবাহিত সিলেক্ট করে আপনার স্বামী/স্ত্রীর নাম, জাতীয় পরিচয়পত্র লিখুন। আপনার যদি একাধিক স্বামী/স্ত্রী থাকে তবে পর্যায়ক্রমে সকলের নাম ও জাতীয় পরিচয়পত্র উল্লেখ করুন। আপনার স্বামী/স্ত্রী মৃত হয়ে থাকলে মৃত্যুর সাল উল্রেখ করতে হবে। ফরমে উল্লেখিত (*) দেওয় অপশনগুলো অবশ্যই পূরণ করতে হবে।

ধাপ ০৬: ব্যক্তিগত তথ্যাদি পূরণ করার পর এবার অন্যান্য তথ্য সিলেক্ট করে আপনার শিক্ষাগত যোগ্যতা, পেশা, অসমর্থতা, সনাক্তকরণ চিহ্ন, টিন নম্বর (যদি থাকে), ড্রাইভিং লাইসেন্স নম্বর (যদি থাকে), টেলিফোন নম্বর (যদি থাকে), মোবাইল নম্বর ও ধর্ম উল্লেখ করুন। আপনার যদি কোন অসমর্থতা না থাকে তবে ভূল করেও এই অংশ পূরণ করবেন না। ফরমে উল্লেখিত (*) দেওয় অপশনগুলো অবশ্যই পূরণ করতে হবে।

ধাপ ০৭: অন্যান্য তথ্যাদি পূরণ করার পর এবার ঠিকানা সিলেক্ট করে প্রথমে অবস্থানরত দেশের (Country) নাম উল্লেখ করুন। তারপর আপনার বর্তমান ও স্থায়ী ঠিকানা লিখুন। যদি বর্তমান ও স্থায়ী ঠিকানা একই হয় তবে সেইম (Same) দিয়ে দিবেন এবং যদি ভিন্ন হয় তবে আলাদা আলাদা লিখতে হবে। তারপর ভোটার এরিয়া (যে এলাকা/মহল্লা/গ্রামে ভোটার হতে ইচ্ছুক) উল্লেখ করুন। সবকিছু ঠিকঠাক মতো পূরণ করা হয়ে গেলে উপরের ডানপাশে পরবর্তী (Next) বাটনে ক্লিক করুন।

ধাপ ০৮: পরবর্তী বাটনে ক্লিক করলে কাগজপত্র আপলোড করার অপশন আসবে এবং নিচে লেখা প্রদর্শন হবে যে, কাগজপত্রের প্রয়োজন নেই। তাই এই পেজের উপরের ডানপাশে পরবর্তী বাটনে ক্লিক করুন। কাগজপত্রের প্রয়োজন নেই মানে এই নয় যে, আপনার কোন কাগজপত্র লাগবে না। আপনাকে অবশ্যই আবেদন পত্র জমা দেওয়ার সময় প্রয়োজনীয় কাগজপত্র উপজেলা নির্বাচন কমিশন অফিসে আবেদনের সাথে জমা দিতে হবে।

ধাপ ০৯: পরবর্তী বাটনে ক্লিক করলে নিশ্চিত করুন (Confirm) অপশন আসলে উপরের ডানপাশে সাবমিট (Submit)  বাটন ক্লিক করুন। সাবমিট বাটনে ক্লিক করলে নতুন পেজ লোড হয়ে প্রোফাইল অপশন আসবে। প্রোপাইল অপশনের ডাউনলোড (Download) বাটনে ক্লিক করুন। ডাউনলোড বাটনে ক্লিক করলে নিবন্ধন ফরম (ফরম-২) ডাউনলোড হয়ে যাবে। ফরমটি প্রিন্ট (Print) করে সকল তথ্য ভালো করে যাচাই করে আপনার উপজেলা নির্বাচন কমিশন অফিসে জমা দিন।

০৪. আবেদন ফরম জমা দেওয়ার পূর্বের কিছু জরুরী কাজ

  • আবেদন ফরমে উল্লেখিত (*) দেওয়া অপশনগুলো অবশ্যই পূরণ করতে হবে।
  • ফরমের ৩৪ ও ৩৫ নং ক্রমিকে বর্ণিত আপনার পরিচিত কেউ কিংবা প্রতিবেশির জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বর দিন এবং তাঁর স্বাক্ষর নিন (বাধ্যতামূলক)।
  • ফরমের ৪০, ৪১ ও ৪২ নং ক্রমিকের বর্ণনামতে আপনার এলাকার জনপ্রতিনিধি যেমন পৌর মেয়র/চ্যায়ারম্যান অথবা ওয়ার্ড কাউন্সিলর/ওয়ার্ড মেম্বর অথবা মহিলা কাউন্সিলর/মহিলা মেম্বর এদর যে কোন একজনের নাম, জাতীয় পরিচয়পত্র ও স্বাক্ষরসহ সীলমোহর (বাধ্যতামূলক) নিন।
  • আবেদন ফরমটি জমা দেওয়ার পূর্বে ফরমের অপর পৃষ্ঠায় আপনার স্বাক্ষর/টিপসই দিন।

উপরোক্ত প্রক্রিয়া ও ধাপসমূহ অনুসরন করে অনলাইনে জাতীয় পরিচয়পত্রের আবেদন সম্পন্ন করে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র (পূর্বে উল্লেখিত) আবেদন ফরমের সাথে সংযুক্ত করে আপনার উপজেলা নির্বাচন অফিসে জমা দিন। আশা করা যায় কিছু দিনের মধ্যে আপনার ছবি, ফিংগার প্রিন্ট নেওয়ার জন্য আপনাকে উপজেলা নির্বাচন কমিশন অফিসে ডাকা হবে। পরবর্তীতে আপনার জাতীয় পরিচয়পত্রটি প্রস্তুত হলে আপনার মোবাইল ফোনে মেসেজ আসবে। মেসেজ আসলে পূর্বে রেজিস্ট্রেশন করা একাউন্টে লগ ইন করে অথবা মেসেজে আসা আপনার জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বর দিয়ে নির্বাচন কমিশনের ওয়েবসাইটে রেজিস্ট্রেশন করে আপনার জাতীয় পরিচয়পত্রটি ডাউনলোড করে নিতে পারবেন ইনশাহ আল্লাহ। আশা করি সবাই বুঝতে পেরেছেন। তারপরেও সর্বশেষে আপনাদের আরো একটু বোঝার জন্য পুরো বিষয়টি সংক্ষেপে (Flow Chart) আকারে উপস্থাপন করলাম। জাজাকাল্লাহু খায়রন।

অনলাইনে জাতীয় পরিচয়পত্রের আবেদন

(Visited 306 times, 1 visits today)

Leave a Reply

Your email address will not be published.

close