ড্রাইভিং লাইসেন্স অনলাইন ২০২২

অনলাইনে ড্রাইভিং লাইসেন্স আবেদন ২০২২ । E Learner Driving License Smart Card Only Apply

Driving License Online Apply 2022 – অনলাইনেই ড্রাইভিং লাইসেন্স এর জন্য আবেদন করা যায় – ড্রাইভিং লার্নিং কার্ড

অনলাইনে ড্রাইভিং লাইসেন্স আবেদন – প্রথমেই আপনি বিআরটিএ এর bsp.brta.gov.bd এই লিংকে গিয়ে ইউজার ম্যানুয়াল ডাউনলোড করে পড়ে নিন। সেখানে বিস্তারিত লেখা আছে কিভাবে আবেদন করবেন। ইউজার ম্যানুয়াল ডাউনলোড । আসুন প্রক্রিয়াটি জেনে নিই।

লার্নার বা শিক্ষানবিশ ড্রাইভিং লাইসেন্স আবেদনের পূর্বশর্ত হচ্ছে-আবেদনকারীর ছবি(সর্বোচ্চ ১৫০ কে.বি)।রেজিষ্টার্ড ডাক্তার কর্তৃক মেডিকেল সার্টিফিকেট (সর্বোচ্চ ৬০০কে.বি)। মেডিক্যাল সার্টিফিকেটের ফর্মের জন্য এখানে ক্লিক করুন। জাতীয় পরিচয়পত্রের স্ক্যান কপি (সর্বোচ্চ ৬০০কে.বি)। ইউটিলিটি বিলের স্ক্যান কপি (সর্বোচ্চ ৬০০কে.বি), [ আবেদনকারীর বর্তমান ঠিকানা এবং জাতীয় পরিচয়পত্রের ঠিকানা যদি ভিন্ন হয় তবে বর্তমান ঠিকানার ইউটিলিটি বিল সংযুক্ত করতে হবে ] । বিদ্যমান ড্রাইভিং লাইসেন্সের স্ক্যান কপি [ ড্রাইভিং লাইসেন্সের নবায়ন/শ্রেণী পরিবর্তন/শ্রেণী সংযোজন/ লাইসেন্সের ধরণ পরিবর্তণের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য ] (সর্বোচ্চ ৬০০কে.বি)। শিক্ষাগত যোগ্যতার সনদ এর স্ক্যান কপি (সর্বোচ্চ ৬০০কে.বি)। অনলাইনে আবেদন দাখিলের সময় ভুয়া তথ্য প্রদান করা হলে তার লার্নার ড্রাইভিং লাইসেন্স ও স্মার্ট কার্ড ড্রাইভিং লাইসেন্স বাতিলসহ তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

মোট কথা প্রথমে ইউজার রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন করবেন এনআইডি, জন্ম তারিখ ও মোবাইল নম্বর দিয়ে তারপর উপরের ডকুমেন্টগুলো যোগার করে তারপর আবেদন করতে বসবেন। আবেদন করতে ৩৪৫ টাকা বিকাশ পেমেন্ট প্রয়োজন পড়বে এবং লার্নার কার্ড ডাউনলোড করে ড্রাইভিং শেখা শুরু করুন। যদি আগে থেকেই শেখা থাকে তো প্যাকটিস করুন। ডাক্তারী সার্টিফিকেট অবশ্যই সংগ্রহ করবেন, ইউটিলিটি বিল (বাবার নামে হলেও হবে)। জন্ম নিবন্ধন দিয়ে ড্রাইভিং লাইসেন্স এর আবেদন করতে পারবেন না। মেডিকেল সার্টিফিকেট বা ফিটনেস ফরম ২০২২

ড্রাইভিং লাইসেন্স পেতে কতটি ধাপ অতিক্রম করতে হয়? / অনলাইনে আবেদন করলেই কি হয়ে গেল?

প্রথমত অনলাইনে ড্রাইভিং লাইসেন্স এর জন্য আবেদন করবেন। দ্বিতীয়ত লিখিত পরীক্ষা দিবেন কেন্দ্রে গিয়ে নির্ধারিত তারিখে, ভাইভা দিবেন এবং ব্যবহারিক পরীক্ষায় পাশ করে ড্রাইভিং লাইসেন্স এর জন্য অপেক্ষা করবেন। যদিও ড্রাইভিং লাইসেন্স এর জন্য দেওয়া পরীক্ষা পাশের ফরম বা সনদ দিয়ে রাস্তার ৬ মাস পর্যন্ত ড্রাইভিং এর অনুমতি রয়েছে।

driving licence online apply bangladesh

Caption: After Completion of User Registration you will find the page above all information will be found here. ড্রাইভিং লাইসেন্স রেজিস্ট্রেশন বা আবেদনে কোন সমস্যায় পড়লে বিআরটিএ সেবা বাতায়ন ১৬১০৭,০৯৬১০ ৯৯০ ৯৯৮ নম্বরে কল করে সাহায্য নিতে পারেন। অবশ্যই রবিবার – বৃহস্পতিবার (সকাল ৯.০০ – বিকেল ৫.০০) এই সময়ের মধ্যেই কল দিবেন।

অনলাইনে ড্রাইভিং লাইসেন্স প্রাপ্তির জন্য আবেদন করার পদ্ধতি

  1. প্রথমে “bsp brta” লিখে গুগল করুন।
  2. Welcome to BRTA Service Portal তে ক্লিক করুন।
  3. Register মেন্যুতে ক্লিক করুন।
  4. জন্ম তারিখ ও জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বর দিয়ে রেজিস্ট্রেশন প্রক্রিয়া শুরু করুন।
  5. অনুসন্ধান ক্লিক করলেই সমস্ত তথ্য এনআইডি থেকে চলে আসবে। মোবাইল নম্বর এবং ইমেইল আইডি এবং পাসওয়ার্ড দুবার দিয়ে নিবন্ধন করুন ক্লিক করুন।
  6. ইমেইলে লিংক দিয়ে ভেরিফিকেশন করে নিতে হবে। ইমেইলে ঢুকে Click  এ ক্লিক করে ভেরিফাই করে নিন।
  7. ভেরিফিকেশন সম্পন্ন হয়েছে ম্যাসেজ দেখতে পাবেন।
  8. ইমেইল বা ফোন নম্বর এবং পাসওয়ার্ড দিয়ে Login এ ক্লিক করলে মোবাইলে ওটিপি আসবে এবং ওটিপি দিয়ে ভেরিফাই করে প্রফাইলে প্রবেশ করুন। পুনরায় লগিন করবেন এবং উপরের চিত্রের মত তথ্য দেখাবে।
  9. বামপাশ মেন্যু হতে ড্রাইভিং লাইসেন্স এ ক্লিক করে ট্যাবগুলো থেকে প্রথম শিক্ষানবিশ লাইসেন্স এর জন্য আবেদন করুন এ ক্লিক করলে ইনস্ট্রাকশন দেখাবে সেখানে থেকে ডাক্তারী সার্টিফিকেটের ফরম সংগ্রহ করুন। মোট কথা ইনফরমেশনগুলো ভাল করে পড়ে ফাইলগুলো ঠিক ঠাকমত স্ক্যান করুন।
  10. যদি সব ডকুমেন্ট থাকে আমি সম্মত ক্লিক করলেই আবেদন পেইজ আসবে। ব্যক্তিগত ক্ষেত্রে অপেশাদার সিলেক্ট করে ছবি আপলোড করবেন ফরম্যাট ঠিক রাখবেন।
  11. সেকশন এ তে জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বর দিবেন, জন্ম তারিখ দিবেন এবং অনুসন্ধান এ ক্লিক করলে সকল তথ্য এনআইডি’র বিপরীতে অটো চলে আসবে।
  12. ইংরেজীতে পিতা মাতার নাম, লিঙ্গ সিলেক্ট করবেন, স্বামী বা স্ত্রীর নাম (যদি থাকে), পেশা, শিক্ষাগত যোগ্যতা, বৈবাহিক অবস্থা, স্বামী স্ত্রীর নাম বাংলায়, রক্তের গ্রুপ, বর্তমান ঠিকানা, স্থায়ী ঠিকানা ইত্যাদি দিয়ে দিবেন।
  13. আবেদনকারীর যোগাযোগের বিবরণে মোবাইল নম্বর এবং জরুরী যোগাযোগের জন্য কারও নাম, মোবাইল নম্বর দিবেন এবং
  14. সেকশন বি-তে মোটর সাইকেল ধরণ, লাইট বা হেবী ইত্যাদি প্রয়োজন অনুসারে সিলেক্ট করবেন।
  15. সংযুক্তিতে সকল ডকুমেন্ট আপলোড করতে হবে। যা আপনি স্ক্যান করে রেখেছেন। তারপর সংরক্ষণে ক্লিক করলে সংরক্ষণ হবে এবং নিচে অনলাইন ফি জমা’তে
  16. অনলাইন ফি জমাতে ক্লিক করলে আবেদন রিভিউ দেখতে পাবেন নিচে মোট ফি দেখাবে। ফি জমা দিলে ফি জমাতে ক্লিক করুন।
  17. তাদের সাথে যে কয়েকটি ব্যাংক রয়েছে তা দেখাবে। মোবাইল নম্বর নিশ্চিত করুনে টিক দিন এবং বিকাশ, ডাচ বাংলা ব্যাংক, সিটি ব্যাংক ইত্যাদি মাধ্যমে অর্থ পরিবর্তন করতে পারবেন। ধরি বিকাশে দিবেন।
  18. বিকাশ সিলেক্ট করে নিচের টার্মস এন্ড কন্ডিশন নিশ্চিত করুন এবং বিকাশ গেইটওয়ে থেকে পেমেন্ট করুন এবং ওটিপি এবং পিন দিয়ে কনফার্ম করলে বিকাশ পেমেন্ট শেষ।
  19. পেমেন্ট হয়েছে এবং আবেদনটি সম্পন্ন হয়েছে এবং মানি রিসিপ্ট এবং লার্নারটি ডাউনলোড করে প্রিন্ট করতে পারবেন। লার্নার কার্ডে পরীক্ষার তারিখ এবং ইত্যাদি তথ্য থাকবে। এভাবেই ঘরে বসেই ড্রাইভিং লাইসেন্স এর জন্য আবেদন করতে পারেন।

সত্যিই কি অনলাইনে আবেদন করে পরীক্ষা দিলেই ড্রাইভিং লাইসেন্স স্মার্ট কার্ড পাওয়া যায়?

জি। আমার জানামতে পাওয়া যায়। যদি আপনি ড্রাইভিং এ খুব দক্ষ হয়ে থাকেন তবে আপনি চেষ্টা করে দেখতে পারেন। যদিও আমরা সবাই জানি ৯০% ড্রাইভিং লাইসেন্স পরীক্ষা এবং কার্ড প্রাপ্তি পর্যন্ত উৎকোচ দিতে হয়। দালাল ধরতে হয়। আমি আপনাকে পরামর্শ দিব আপনি নিজেই অনলাইনে আবেদন করুন এবং সময়মত পরীক্ষা দিয়ে ঘুষ ছাড়া লিখিত পরীক্ষা, ভাইভা ও প্র্যাকটিক্যাল টেস্ট দিয়ে পাশ করুন।

ভিডিও আসছে……………….

Apply for Driving License । অনলাইনে ড্রাইভিং লাইসেন্স আবেদন

(Visited 2,497 times, 2 visits today)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *