ব্যক্তি শ্রেণী আয়কর ধার্যের হার ২০২৪ । মোট আয়ের ৩০% সরকারকে দিতে হবে

ব্যক্তি শ্রেণী আয়কর ধার্যের হার ২০২৪ । আপনার মোট আয়ের ৩০% সরকারকে দিতে হবে

আয়কর আইন, ২০২৩ (২০২৩ সনের ১২ নং আইন) এর ধারা ২(৬৯) এ সংজ্ঞায়িত ব্যক্তিগণের (person) মধ্যে অনিবাসী বাংলাদেশীসহ সকল স্বাভাবিক ব্যক্তি (individual), হিন্দু অবিভক্ত পরিবার ও অংশীদারি ফার্মের ক্ষেত্রে মোট আয়ের উপর নতুন করহার প্রযোজ্য  হইবে- ব্যক্তি শ্রেণী আয়কর ধার্যের হার ২০২৪

ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের কত লক্ষ টাকা পর্যন্ত শুন্য কর হার?– প্রথম ৩,৫০,০০০/- টাকা পর্যন্ত মোট আয়ের উপর — শুণ্য হার। পরবর্তী ১,০০,০০০/- টাকা পর্যন্ত মোট আয়ের উপর – ৫% কর। পরবর্তী ৪,০০,০০০/- টাকা পর্যন্ত মোট আয়ের উপর -১০%। পরবর্তী ৫,০০,০০০/- টাকা পর্যন্ত মোট আয়ের উপর -১৫% কর। পরবর্তী ৫,০০,০০০/- টাকা পর্যন্ত মোট আয়ের উপর-২০%  কর। পরবর্তী ২০,০০,০০০/- টাকা পর্যন্ত মোট আয়ের উপর-২৫% কর এবং অবশিষ্ট মোট আয়ের উপর ৩০% আয়কর দিতে হবে।

সিনিয়র সিটিজেনদের করমুক্ত আয় সীমা কি বাড়ছে? না। মহিলা করদাতা এবং ৬৫ বৎসর বা তদূর্ধ্ব বয়সের করদাতার করমুক্ত আয়ের সীমা হইবে ৪,০০,০০০/- টাকা। তৃতীয় লিঙ্গের করদাতা এবং প্রতিবন্ধী স্বাভাবিক ব্যক্তি করদাতার করমুক্ত আয়ের সীমা হইবে ৪,৭৫,০০০/- টাকা। গেজেটভুক্ত যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা করদাতার করমুক্ত আয়ের সীমা হইবে ৫,০০,০০০/- টাকা।

প্রতিবন্ধী সন্তান থাকলে কি কোন রেয়াত পাওয়া যাইবে? হ্যাঁ।কোনো প্রতিবন্ধী ব্যক্তির পিতামাতা বা আইনানুগ অভিভাবকের প্রত্যেক সন্তান/পোষ্যের জন্য করমুক্ত আয়ের সীমা ৫০,০০০/- টাকা অধিক হইবে। প্রতিবন্ধী ব্যক্তির পিতা ও মাতা উভয়েই করদাতা হইলে যেকোনো একজন এই সুবিধা ভোগ করিবেন। বাংলাদেশে অনিবাসী (অনিবাসী বাংলাদেশি ব্যতীত) এইরূপ সকল করদাতার জন্য এই অনুচ্ছেদ প্রযোজ্য হইবে না।

আপনার আয়ের ৩০% সরকারকে কর হিসেবে দিতে হবে/টাকা বৈধ করতে হলে কর দিতে হবে

যে ব্যক্তি করদাতাদের জন্য করমুক্ত আয়ের সর্বোচ্চ সীমা ২০০৯-১০ অর্থবছরে ছিল ১ লক্ষ ৬৫ হাজার টাকা, যা ধাপে ধাপে বাড়িয়ে ২০২৩-২৪ অর্থবছরে ৩ লক্ষ ৫০ হাজার টাকায় উন্নীত করা হয়েছে। নারী, প্রবীণ নাগরিক, শারীরিকভাবে প্রতিবন্ধী, তৃতীয় লিঙ্গের সদস্য এবং গেজেটেড যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য করমুক্ত আয়ের সীমা আরও বেশি। এতে করে স্বাভাবিক ব্যক্তি করদাতাদের করভার লাঘবের ফলে জীবনযাত্রায় কিছুটা স্বাচ্ছন্দ্য ফিরে এসেছে এবং করদাতারা নিয়মিতভাবে কর পরিশোধে উৎসাহিত হয়েছেন।

আয়কর আইন, ২০২৩ (২০২৩ সনের ১২ নং আইন) এর ধারা ২(৬৯) এ সংজ্ঞায়িত ব্যক্তিগণের (person) মধ্যে অনিবাসী বাংলাদেশীসহ সকল স্বাভাবিক ব্যক্তি (individual), হিন্দু অবিভক্ত পরিবার ও অংশীদারি ফার্মের ক্ষেত্রে মোট আয়ের উপর করহার নিম্নরূপ হইবে, যথা :-

Caption: Budget 2024-2025 Bangla

বাংলাদেশের নতুন বাজেটে পরিবর্তন ২০২৪ / ২০২৪-২০২৫ অর্থ বছরে বাজেটে ভ্যাট ও কর হারে পরিবর্তনগুলো আনা হয়েছে

  1. সকল ধরণের আইসক্রিমের ওপর বিদ্যমান সম্পূরক শুল্ক হার ৫ শতাংশের পরিবর্তে ১০ শতাংশ নির্ধারণ।
  2. কার্বনেটেড বেভারেজের জন্য নির্ধারিত মাত্রার উপাদান অপেক্ষা ভিন্নতর মাত্রার উপাদান সম্বলিত পানীয়ের ওপর বিদ্যমান ৩৫ শতাংশ সম্পূরক শুল্কের পরিবর্তে ৪০ শতাংশে সম্পূরক শুল্ক নির্ধারণ।
  3. সিগারেট মানব স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর একটি পণ্য। এ জাতীয় ক্ষতিকর পণ্যের ব্যবহার কমানো ও রাজস্ব আদায় বৃদ্ধির লক্ষ্যে আইনের দ্বিতীয় তফসিলে উল্লিখিত সম্পূরক শুল্কের হার ৬৫ শতাংশের পরিবর্তে ৬৬ শতাংশ নির্ধারণ।
  4. টেলিফোন [শুধুমাত্র মোবাইল ফোনের সিম/রিম কার্ড ব্যবহারের মাধ্যমে প্রদত্ত সেবা (সেবা কোড S012.10)] এর বিপরীতে বিদ্যমান সম্পূরক শুল্ক ১৫ শতাংশের পরিবর্তে ২০ শতাংশ নির্ধারণ করার প্রস্তাব করছি; এছাড়াও প্রতিটি $ IM কার্ড/e-SIM সরবরাহের বিপরীতে বিদ্যমান মূসকের পরিমাণ ২০০ টাকার পরিবর্তে ৩০০ টাকা নির্ধারণ।
  5. রাজস্ব আদায় ও করপরিপালন বৃদ্ধির লক্ষ্যে আমসত্ত্ব (ম্যাংগো বার), ম্যাংগো জুস, আনারসের জুস, পেয়ারার জুস, তেতুলের জুস এর স্থানীয় উৎপাদন পর্যায়ে মূসকের হার ৫ শতাংশ এর পরিবর্তে ১৫ শতাংশ নির্ধারণ।
  6. ১ থেকে ৫০ ওয়াট এর অধিক ক্ষমতা সম্পন্ন বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী বাল্ব এর স্থানীয় উৎপাদন পর্যায়ে মূসকের হার ৫ শতাংশ এর পরিবর্তে ১৫ শতাংশ নির্ধারণ।
  7. টিউব লাইট (১৮ ওয়াট ও ৩৬ ওয়াট) এর স্থানীয় উৎপাদন পর্যায়ে মূসকের হার ৫ শতাংশের পরিবর্তে ১৫ শতাংশ নির্ধারণ।
  8. সিগারেট/বিড়ি পেপার এর স্থানীয় উৎপাদন পর্যায়ে মূসকের হার ৭.৫ শতাংশের পরিবর্তে ১৫ শতাংশ নির্ধারণ।
  9. সেবা সরবরাহের ক্ষেত্রে বিদ্যমান মূসক হার ৭.৫ শতাংশের পরিবর্তে ১৫ শতাংশ নির্ধারণ।
  10. এ্যামিউজমেন্ট পার্ক ও থিম পার্ক সেবা সরবরাহের ক্ষেত্রে বিদ্যমান মূসক হার ৭.৫ শতাংশের পরিবর্তে ১৫ শতাংশ নির্ধারণ।
  11. রেফ্রিজারেটর ও ফ্রিজার উৎপাদনের ক্ষেত্রে স্থানীয় উৎপাদন পর্যায়ে মূসকের পরিমাণ ৫ (পাঁচ) শতাংশের পরিবর্তে ৭.৫ (সাত দশমিক পাঁচ) শতাংশ আরোপ।

ব্যাংকে টাকা রাখার খরচ কি বেড়ে গেল?

হ্যাঁ। Excises and Salt Act, ১৯৪৪ এর আওতায় বর্তমানে বিমান টিকেট ও ব্যাংক হিসাবের ওপর আবগারি শুল্ক আরোপিত রয়েছে। বিমান টিকেট এর ওপর আরোপিত আবগারি শুল্ক অপরিবর্তিত রেখে ব্যাংক হিসাবের স্ল্যাবসমূহ এবং আবগারি শুল্কের পরিমাণ নিম্নোক্তভাবে যৌক্তিকীকরণ করা হয়েছে; যথা:-ক) ১০ লক্ষ টাকা পর্যন্ত বিদ্যমান ০৩টি স্ল্যাব এর আবগারি শুল্কের পরিমাণ অপরিবর্তিত রাখা হয়েছে। খ) ১০ লক্ষ ০১ টাকা থেকে ০১ কোটি টাকা পর্যন্ত বিদ্যামান স্ল্যাব এর আবগারী শুল্ক ৩,০০০ টাকার পরিবর্তে – i) ১০ লক্ষ ০১ টাকা থেকে ৫০ লক্ষ টাকা পর্যন্ত আবগারী শুল্ক ৩,০০০ টাকা; এবং ii) ৫০ লক্ষ ০১ টাকা থেকে ০১ কোটি টাকা পর্যন্ত আবগারী শুল্ক ৫,০০০ টাকা করা হয়েছে; গ) ০১ কোটি ০১ টাকা থেকে ০৫ কোটি টাকা পর্যন্ত বিদ্যমান স্ল্যাব এর আবগারী শুল্ক ১৫,০০০ টাকার পরিবর্তে – i) ০১ কোটি ০১ টাকা হতে ০২ কোটি টাকা পর্যন্ত আবগারী শুল্ক ১০,০০০ টাকা; এবং ii) ০২ কোটি ০১ টাকা হতে ০৫ কোটি টাকা পর্যন্ত আবগারী শুল্ক ২০,০০০ টাকা করা হয়েছে। ০৫ কোটি টাকার উর্ধ্বের স্ল্যাব এর আবগারী শুল্ক অপরিবর্তিত রাখা হয়েছে।

https://bdservicerules.info/budget-2024-2025-bangla/

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *